Intolerance!!! হিন্দু ছাত্রদের জোর করে নামাজ পড়ানোর চাপ শিক্ষকদের Hindu students forced to offer Namaz in a school by Muslim teachers


হিন্দু ছাত্রদের জোর করে নামাজ পড়ানোর চাপ শিক্ষকদের।
ঘটনাটি ঘটেছে মুসলিম অধ্যুষিত গুরুগ্রাম এলাকার সরকারী আবাসিক স্কুলে।  দুই মুসলমান শিক্ষক হিন্দু ধর্মের  দুই ছাত্রকে জোর করে নামায পড়ানোর জন্য দোষী সাব্যস্ত করে -  আবাসিক বিদ্যালয় স্থগিত করে হিন্দু ছাত্রদের অন্যত্র সরানো হয়েছে । জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের প্যানেলের মাধ্যমে মাধি গ্রামের মেওয়াট মডেল পাবলিক স্কুল-এর তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে ডেপুটি কমিশনার মনি রাম শর্মা়। কম্পিউটার বিজ্ঞান, উর্দু এবং  সামাজিক বিজ্ঞান এই তিন বিষয়ের  তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এই তিন জন  হোস্টেলের ওয়ার্ডেনও। ২২ জুলাই হিন্দু ছাত্রদের বাবা-মা শর্মার কাছে অভিযোগ করেন।

   ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক নতুনেনশক্তি থিওডিয়াকে বলেন, 'অন্যান্য মুসলিম ছাত্ররা বলেছে যে তিনজন শিক্ষক দুইজন হিন্দু ছাত্রকে ইসলামি আদর্শ পালন করতে বলেন এবং নম্বরও দেবেন। শিক্ষকরা প্রায়ই হিন্দু ছাত্রদেরকে ইসলামে রূপান্তর করার জন্য চাপ দিতেন। " এরপর ২8 জুলাই  কম্পিউটার বিজ্ঞান শিক্ষক ও উর্দু শিক্ষককে বরখাস্ত করা হয়, অন্য হোস্টেল ওয়ার্ডেন এবং সামাজিক শিক্ষককে অন্য হোস্টেলে স্থানান্তর করা হয়েছে। শর্মা দাবি করেন যে, "আমরা স্বাধীনভাবে তদন্ত চালানোর জন্য একটি কমিটি গঠন করেছি, কিন্তু প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে আমরা তিনজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। ব্যাপারটি সংবেদনশীল। " শামীম আহমেদ, মেভাট ডেভেলপমেন্ট এজেন্সির আধিকারিক বলেন, "বাবা-মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। চূড়ান্ত তদন্তের পরে সত্য বেরিয়ে আসবে। " স্কুলটির ২07 জন ছাত্র এবং আসামি মঈনুদ্দীন সত্যকে অস্বীকার করে বলেছেন, "তাদের জন্য কিছুই স্থগিত করা হয়নি এবং তারা তাদের স্কুলে দুই হিন্দু শিক্ষার্থীদের কাছে কিছুই বলেনি। যে অভিযোগগুলি গ্রহণ করা হয়েছে তা শুধু 'সত্যবাদী মুসলমানদের' লক্ষ্য করে করা হয়েছে । এক ছাত্রের মাতাপিতা বলেন, "তিনি তার পুত্র কে নামাজ পড়া এবং Kuran পড়তে দেখেছেন। তাঁর কাকতো ভাই এই বিষয়ে পরিবারের কাছে অভিযোগ করেন। " যদিও স্কুলের অধিকাংশ  শিক্ষকগণ তাদের "শুভ সকাল" এর পরিবর্তে "কুবূল" হিসাবে অভিবাদন হিসাবে পছন্দ করেন। হোস্টেলেও, অন্যান্য মুসলিম ছাত্ররা কুরআন পড়ে।

এই অসহিষ্ণু নিয়ে নীরব সেক্যুলার সমাজ ? বিভিন্ন মহলের দাবি, এখন কি অন্যের ধর্মের মতামত পাল্টাচ্ছে?  কংগ্রেস ও এএপি নেতারা কোথায় ?

It’s shameful to bully one’s religion ideologies and the culture on others. Especially, in India, these ‘Forced actions’ being a common torture in ‘Muslim majority’ areas.
In Gurugram, two Muslim teachers accused for forcing the only two students of Hindu religion to offer a Namaz in Government – run residential school been suspended, while other been transferred.
Investigate the charges against three teachers of Mewat Model Public school in Madhi village by three member panel, led by the district education officer, has also been constituted by deputy commissioner Mani ram Sharma.
The action was taken against three teachers of computer science, Urdu and a social teacher, who is also a hostel’s warden. Parents of Hindu students complained to Sharma on July 22 about this issue and the charge has been taken soon.
Teacher in charge Naveen Shakthi stated to themedia that ‘ Other Muslim students have said the three teachers would ask the two Hindu students to abide by Islamic norms and offer Namaz. The teachers also often asked two Hindu students to convert Islam.”
Then the charges taken, the Computer science teacher and the Urdu teacher were suspended on July 28 , while the other hostel warden and also the social teacher has been transferred to other hostel located at FirozpurZhirka. The school is now left only with few teachers.
Adding to it, Sharma claimed that, “We’ve constituted a committee to carry out investigation independently, but we took action against the three teachers based on preliminary investigation. The matter is sensitive.”
ShamimAhmed, project officer of the Mewat Development Agency said, “As per the complaints of the parents, action has been taken against the teachers. The truth will come out after the final probe report.”
The school has 207 students and the accused Moinuddeen denying the fact, “They have been suspended for nothing and they hadn’t said anything to the two Hindu students of their school. The charges which has been taken is just to target ‘Truthful Muslims.’
Parents of one student stated that, “She have seen her Son doing Namaz and reading Kuran. His cousin, who is also studying with him complained about this issue to the family.”
While the school have a majority Muslims, the teachers preferred to greet them as “Kubul” instead of “Good Morning”. In the hostel too, while the other Muslim students doing Kuran, only two Hindu students being forced to offer a Namaz too.
Who is torturing who now in India? Who is really intolerant now? Who is really busy doing ‘Sin’ now? Who is bullying religion ideologies on others now? Where are ‘Award Vapsi’ drama actors now? Where are Congress and AAP leaders now to ‘speak up’ the real face of Islam?



Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment