ফের গো-রক্ষকদের অমানবিক তান্ডব,মারাত্মক ভাবে আক্রান্ত নিরীহ পাঁচ


প্রধানমন্ত্রীর কড়া বার্তা ও সুপ্রিম কোর্টের রায় পেলোনা কোনো গুরুত্ব। ফের গো-রক্ষকদের তাণ্ডবের শিকার হলেন পাঁচজন নিরীহ গরীব খেটে খাওয়া মানুষ। ঘটনাটি ঘটেছে হরিয়ানার ফরিদাবাদে। আক্রান্তদের সরাসরি অভিযোগ , গোটা ঘটনাটি ঘটেছে পুলিশের সামনেই। শুধু তাই নয়, ঘটনায় আক্রান্তদের বিরুদ্ধে গরু পাচার বিরোধী আইনে মামলাও রুজু করেছে হরিয়ানা পুলিশ।
গত মাসেই গো-রক্ষকদের তাণ্ডব নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। এই ঘটনা রুখতে রাজ্যগুলিকে জেলায় একজন করে নোডাল অফিসার নিয়োগ করতে বলেছিল শীর্ষ আদালত। এমনকী, গরু নিয়ে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হলে রাজ্যের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে, তাও কেন্দ্রকে জানাতে বলা হয়েছিল। কিন্তু, সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ কার্যকর করতে বিজেপিশাসিত রাজ্যগুলি কতটা উদ্যোগ নেবে, তা নিয়ে প্রশ্ন ছিল পর্যবেক্ষক মহলে।
ঘটনাচক্রে, সেই বিজেপিশাসিত হরিয়ানার ফরিদাবাদেই গো-মাংস বহনের অভিযোগে এক অটোচালক ও যাত্রীদের বেধড়ক মারধর করল স্বঘোষিত গো-রক্ষকরা। জানা গিয়েছে, দিল্লি-ফরিদাবাদে জাতীয় সড়কে একটি যাত্রীবোঝাই অটোকে ঘিরে ধরে কয়েকজন দুষ্কৃতীরা।অটোর চালককে ‘ভারত মাতা কি জয়’ ও ‘জয় হনুমান’ বলতে বলা হয়। কিন্তু, তিনি রাজি হননি। এরপরই অটো গো-মাংস নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ তুলে শুরু হয় বেধড়ক মারধর। রেহাই পাননি অটোর যাত্রীরাও।
আক্রান্তদের অভিযোগ, ঘটনায় সময়ে সেখানে উপস্থিত ছিলেন কয়েকজন পুলিশকর্মী। কিন্তু, তাঁরা কোনও সাহায্য করেননি। বস্তুত, হামলাকারীদের বিরুদ্ধে নয়, আক্রান্তদের বিরুদ্ধেই গরু পাচার বিরোধী আইনে মামলা রুজু করেছ পুলিশ। অটো থেকে উদ্ধার হওয়া মাংস গো-মাংস কিনা, তা পরীক্ষা করে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন ফরিদাবাদের পুলিশ সুপার। যদিও অটোয় আদৌ গো-মাংস ছিল না বলে দাবি করেছেন আক্রান্তরা।
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment