কেন্দ্রের "FRDI" সাধারণ মানুষের টাকা লুটের ছক :সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

Indiapost24 Desk:শুক্রবার বিকেলে ব্যাঙ্কিং বিল প্রতিরোধে যাদবপুর থেকে হাজরা মোড় পর্যন্ত মিছিলে নেতৃত্ব দিলেন সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়,শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ। তৃণমূলের সাফ কথা, সংসদে কোনো ভাবেই পাশ হতে দেয়া যাবে না এই  ব্যাঙ্কিং বিল। মানুষ ব্যাঙ্কে টাকা রাখছেন। আর জানেন না, মেয়াদ শেষে তা পাবেন কি না।এটা কি ভাবে দেশের সাধারণ মানুষজন মেনে নেবে। রক্ত ঝরিয়ে, গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে আন্দোলন করে, সংসদে প্রতিবাদ করে এই বিল রুখতে হবে।বিজেপিকে সারদার মালিক সুদীপ্ত সেনের সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেন, বিজেপি আর সুদীপ্ত সেনের মধ্যে কোনও পার্থক্য নেই। সুদীপ্ত গরিব নিঃস্ব মানুষজনের টাকা লুঠ করেছিল বিভিন্ন ছকবাজি করে, আর FRDI-এর মাধ্যমে কেন্দ্র সাধারণ মানুষের টাকা লুটের ছক কষছে।
ব্যাঙ্কিং বিলের বিরোধিতা করতে নেমেও তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় মিছিল শেষে হাজরায় বললেন, বিজেপি এখন আর ভারতীয় জনতা পার্টি নেই সেটি  এখন  ভারতীয় জঞ্জাল পার্টি তে রূপান্তরিত হয়েছে। আমরা যাদের উচ্ছিষ্ট বলে ফেলে দিচ্ছি রাজ্যে,বিজেপি সেগুলো লুফে নিচ্ছে। ঘর সাজাচ্ছে, নাচানাচি করছে কত কিছু । সাংসদের লক্ষ্য যে সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া পদ্ম শিবিরের মুকুল রায়, তা বলাই বাহুল্য।আবার এদিন তার কড়া হুঁশিয়ারি ও ব্যঙ্গ থেকে রেহাই পায়নি পদ্ম শিবিরের দিলীপ ঘোষও.. তিনি বলেন সিপিএম আমলে শুনতাম সুভাষ চক্রবর্তীর ছত্র ছায়ায় নাকি হাত কাটা দিলীপ, কান কাটা দিলীপ গুণ্ডারা রয়েছে।আর এখন দেখছি তো জিভ কাটা দিলীপ যে ।বিজেপির দিলীপের ভাষার ওপর কোনও নিয়ন্ত্রণ নেই।যা ইচ্ছে তাই বলছে.
ই ভাবে এদিন সভাতে অভিষেকের কড়া নির্দেশ, বড়দিনের পরেই কলকাতার কম বেশি প্রতিটি  ওয়ার্ডে, পারলে 141টি ওয়ার্ডে মিছিল, মিটিং, প্রতিবাদ সভা, প্রয়োজনে ধর্ণাও দিতে হবে। এই মিছিল থেকে আজই বিল রুখে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি নিতে হবে রাজ্যের মানষুকে। তাঁর নেতৃত্বে এই ভাবে এই প্রতিবাদ সভাতে লক্ষ লক্ষ মানুষের ঢল যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ সঙ্গে বিরোধী শিবিরে কপালে ভাঁজ ফেলে দেওয়ার মত বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল.



Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment