কে জানেন ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে?

১৪ ই ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে, এই দিনে একে অন্যকে তাদের ভালোবাসা জানায়। প্রাচীন রোমে ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ছিল রোমান দেব-দেবীর রানি জুনোর সম্মানে ছুটির দিন। জুনোকে নারী ও প্রেমের দেবী বলে লোকে বিশ্বাস করত। কারো কারো মতে ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস হওয়ার কারণ ছিল এটিই।

আবার অনেকে বলেন, রোমের সম্রাট ক্লডিয়াস ২০০ খ্রিস্টাব্দে দেশে বিয়ে প্রথা নিষিদ্ধ করেন। তিনি ঘোষণা দেন, আজ থেকে কোনো যুবক বিয়ে করতে পারবে না। যুবকদের জন্য শুধুই যুদ্ধ। সম্রাট ক্লডিয়াসের এ অন্যায় ঘোষণার প্রতিবাদ করেন এক যুবক। যার নাম ভ্যালেন্টাইন। অসীম সাহসী এ যুবকের প্রতিবাদে ক্ষিপ্প্ত হন ক্লডিয়াস  । ভ্যালেন্টাইন  বুঝতে পেরে গোপনে গোপনে তরুণ প্রেমিক প্রেমিকাদের বিয়ে দিতে থাকেন। যখন ভ্যালেন্টাইন এর এই কার্য ফাস হয়ে যায় তখন রাজা ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে হত্যার নির্দেশ দেন।রাজদ্রোহের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় তাকে। ১৪ ফেব্রুয়ারি ভোরবেলা মাথা কেটে ফেলা হয় তার। ভালোবাসার জন্য ভ্যালেন্টাইনের আত্মত্যাগকে স্মরণ করতে তখন থেকেই এ দিনটিকে পালন করা হয় "ভ্যালেন্টাইন্স ডে" হিসেবে।


অন্য এক সূত্র ধরে  জানা যায়, ভ্যালেন্টাইন ছিলেন একজন খ্রিস্টান যুবক, যিনি জেল-সুপারের এক  কন্যার প্রেমে পড়েন, জেল-সুপার ঘটনা জানতে পেরে তাকে ধরে এনে কারাগারে বন্দী করে এবং প্রচন্ড প্রহার করতে থাকে। কারা রক্ষকদের কঠোর অত্যাচারে ১৪ ই ফেব্রুয়ারি তিনি মৃত্যুবরণ করেন এবং মৃত্যুর আগে জেল খানায় বসে তিনি তার প্রেমিকাকে ভালোবাসা জানিয়ে এক খানা চিঠি লিখে যান যা "ভ্যালেন্টাইন ডে" তে ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে বিবেচিত হয়। যার ফলে এখন সবাই ভালোবাসার মানুষকে কার্ড দিয়ে শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা জানায়।

এছাড়া ভ্যালেন্টাইন’স ডে নিয়ে এই ভাবে অনেক কথিত ইতিহাস রয়েছে তবে সবকিছু পেরিয়ে এই দিনটি ভালোবাসার দিন হিসেবে বিশ্ব দরবারের বর্তমান বিশ্বে একটি জনপ্রিয় দিন হিসেবে পালিত হচ্ছে।
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment