আসন্ন পুরভোটে উত্তরপ্রদেশের হিন্দুত্ব মডেল নিল বাংলা বিজেপি

 



তোষণের রাজনীতিই আসন্ন পুরসভা নির্বাচনে বাংলা বিজেপির অস্ত্র । সংখ্যলঘু ভোট টানতে সংখ্যালঘু সমাজের প্রতিনিধিকে ব্যবহার করবে না বাম তৃণমূল ও কংগ্রেসের মত।উত্তরপ্রদেশের হিন্দুত্ব মডেলই বাংলায় প্রয়োগ করতে চাইছে বিজেপি।এই চালে বিজেপি দল এবং ভোটারদের বার্তা দিতে চাইছে। 

প্রসঙ্গত, কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতাদের মত বাংলা বিজেপির নেতারা হিন্দুত্ববাদী নয়বিভিন্ন মহলের এই অভিযোগকে মাথায় রেখে পশ্চিমবঙ্গের মত সেক্যুলার সমাজে ভোট করবে ।বিজেপি সুত্রের খবর, রাজ্য বিজেপির নেতারা হিন্দুত্ববাদের ওপর ভর করে বক্তব্য রাখতে কার্যত অনভ্যস্ত।নেতাদের অভ্যস্ত করতে এবং হিন্দুত্ববাদের ওপর দাঁড়িয়ে বিজেপি এগোতে চাইছে সেই বার্তা ভোটারদের দিতে চাইছে।যদিও  বিজেপি দুটি কেন্দ্রে সংখ্যালঘু প্রার্থী দিয়েছিল। অভি‌যোগ, দুটি কেন্দ্রের সংখ্যালঘু প্রার্থীরা তৃণমূলের শাসানিতে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছে। এরপরই পুরসভা নির্বাচনে কোনও সংখ্যালঘু প্রার্থী না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি।

রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের মতে, তোষণের রাজনীতি করে না বিজেপি। এই সিদ্ধান্ত সাধারণ মানুষের কাছে সদর্থক বার্তা দেবে। বিজেপি সূত্রে খবর, পাঁশকুড়ায় দুজন সংখ্যালঘু প্রার্থী দেওয়া হয়েছিল। তবে তাঁরা শাসক শিবিরে গিয়ে ভিড়েছেন। এরপরই কোনও মুসলিম প্রার্থী না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিজেপি।তৃণমূল বিরোধী প্রার্থীদের প্রভাবিত করছে, এই অভি‌যোগ অস্বীকার করেছেন শুভেন্দু অধিকারী। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের কথায়,”এটা সাধারণ মানুষের কাছে সঠিক বার্তা দেবে। কংগ্রেস, তৃণমূল, সিপিএমের মতো বিজেপি তোষণের রাজনীতি করে না। উত্তর প্রদেশে সংখ্যালঘু প্রার্থী না দিয়েও আমরা সাফল্য পেয়েছি।”
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment