গুজরাটে আক্রান্ত রাহুল Congress vice-president Rahul Gandhi was attacked by visiting Gujarat

 



নরেন্দ্র মোদির রাজ্য গুজরাটের বন্যাবিধ্বস্ত জেলা বনাসকান্ঠা পরিদর্শনে গিয়ে আক্রান্ত কংগ্রেস সহ–‌সভাপতি রাহুল গান্ধী। জলমগ্ন ওই জেলার ধনেরিতে পাথর ছোঁড়া হয় রাহুলের গাড়ি লক্ষ্য করে। রাহুল অক্ষত থাকলেও পাথরের আঘাতে আহত হয়েছেন রাহুলের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা স্পেশাল প্রোটেকশন গ্রপের এক অফিসার। ভেঙেছে একটি গাড়ির কাচ।
কংগ্রেসের দাবি, ওই গাড়িতেই ছিলেন রাহুল। তবে বনাসকান্ঠা পুলিস সুপার নীরজ বড়গুজর জানিয়েছেন, ক্ষতিগ্রস্ত গাড়িটিতে রাহুল ছিলেন না। রাহুলের কনভয়ে থাকা ওই গাড়িটিতে যাচ্ছিলেন কংগ্রেসের এক প্রাক্তন পঞ্চায়েত প্রধান এবং তাঁর কয়েকজন সহযোগী। রাহুলের কনভয়ে পাথর ছোঁড়ার জন্য এক সন্দেহভাজনকে পুলিস আটক করেছে বলেও তিনি জানিয়েছেন। আর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের একটি সূত্র জানিয়েছে, ধনেরিতে রাহুলকে ‘বুলেটপ্রুফ’ গাড়িতে উঠতে অনুরোধ করা হয়েছিল নিরাপত্তা রক্ষীদের তরফে। কিন্তু রাহুল সেই অনুরোধ না শুনে একটি সাধারণ গাড়িতে উঠে পড়েছিলেন। তবে সেই গাড়িটিরই পিছনের কাচ ভেঙেছে কি না সেই বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে কোনও তথ্য এখনও এসে পৌঁছয়নি। তবে রাহুল গান্ধীর মতো ভিভিআইপি–র কনভয়ে পাথর পড়ার ঘটনা যে নিরাপত্তা ব্যবস্থায় বিরাট গাফিলতির উদাহরণ, তাতে কোনও সংশয় নেই। গাফিলতি রাজ্য সরকারেরই হোক বা এসপিজি–র, দায় কোনওভাবেই এড়াতে পারছে না বিজেপি। কারণ, রাজ্য ও কেন্দ্র উভয় জায়গায় ক্ষমতায় রয়েছে ওই দলই।
আজ সকালে রাজস্থানের বন্যাবিধ্বস্ত এলাকাগুলি পরিদর্শনের পর দুপুরে বন্যায় গুজরাটের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ধনেরিতে পৌঁছন রাহুল। বন্যাদুর্গতদের সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলেন। প্রতিশ্রুতি দেন যে দুর্গতদের যথাসম্ভব সহায়তা করবেন। তারপর পৌঁছন লালচকে। সেখানে একটি পথসভায় বক্তব্য পেশ করার কথা ছিল কংগ্রেস সহ–‌সভাপতির। কিন্তু রাহুল মঞ্চে উঠতেই তাঁকে কালো পতাকা দেখাতে শুরু করে কিছু বিজেপি সমর্থক। তারা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সমর্থনে স্লোগানও দেয়। ওই সমস্ত বিজেপি কর্মীর বাধায় রাহুল তাঁর বক্তব্য কোনও রকমে শেষ করে হেলিপ্যাডের উদ্দেশ্যে রওনা হন। কিন্তু রাহুলের কনভয় চলা শুরু করতেই জমা ভিড়ের মধ্যে থেকে উড়ে আসতে থাকে বড় বড় পাথরের টুকরো। তবে না থেমে ওই পাথর বৃষ্টির মধ্যেই লালচক ছেড়ে বেরিয়ে যায় রাহুলের কনভয়।
যথারীতি রাহুলের ওপর এই আক্রমণের খবর জানাজানি হতেই শুরু হয়ে যায় রাজনৈতিক তরজা। ঘটনার সামান্য পরেই স্বয়ং রাহুল টুইট করেন, ‘নরেন্দ্র মোদিজি, স্লোগান, কালো পতাকা, পাথর কোনও কিছুই আমাদের আটকাতে পারবে না। আমরা আমাদের পুরো শক্তি নিয়োজিত করব মানুষের সেবায়।’ আর এআইসিসি–‌র সদর দপ্তরে তড়িঘড়ি ডাকা এক সাংবাদিক সম্মেলনে রাহুলের ওপর আক্রমণকে কংগ্রেসের মুখপাত্র অভিষেক মনু সিংভি ‘কাপুরুযোচিত’ বলে বর্ণনা করেছেন। বিজেপি–‌র উদ্দেশ্যে আক্রমণ শানিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, ‘ওরা ভেবেছে কী? এভাবে কি ওরা সফল হবে বিরোধীদের কন্ঠরোধ করতে? ওরা কি চায় হিংসা ছড়িয়ে সকলকে দমিয়ে রাখতে? এই দেশে কি গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে বিরোধীরা প্রতিবাদ করতে পারবে না?’ সকলেরই এক সুরে এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করা উচিত বলে সিংভির অভিমত। সিংভির মতো কংগ্রেস নেতা আহমেদ প্যাটেল, গুজরাট রাজ্যসভার নির্বাচনে যাঁকে হারাতে কোমর বেঁধে নেমেছে বিজেপি, বলেছেন যে ভয় দেখিয়ে কংগ্রেসের মতো দলকে দমানো যায় না। ‘রাহুল গান্ধীর ওপর এই আক্রমণই প্রমাণ করে দিচ্ছে যে গুজরাটের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির কতটা অবনতি হয়েছে,’ এই মন্তব্য করে প্যাটেল বলেছেন, কোনও কংগ্রেস কর্মীই ওই রাজ্যে নিরাপদ নয়। পাশাপাশি কংগ্রেসের অপর মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা টুইট করে ‘জঘন্য এবং মর্যাদাহানিকর’ বলে অভিহিত করেছেন। প্রিয়া দত্তের মতে, ভারতীয় রাজনীতি এর চেয়ে নিম্নস্তরে কখনও পৌঁছয়নি। আর পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেস পরিষদীয় দলনেতা আবদুল মান্নানের অভিযোগ, ‘ভারতীয় সভ্যতা এবং সংস্কৃতিকে ধ্বংস করছে সঙ্ঘ পরিবার।’‌ ঘটনার নিন্দা করে বলেন, ‘‌মোদি সরকার ফ্যাসিস্ট কায়দায় দেশ চালাচ্ছে।’‌ পক্ষান্তরে, বিজেপি–‌র পক্ষ থেকে এই ঘটনাকে রাহুলের ’নাটুকেপনা’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে। এই আক্রমণের ঘটনা সাজানোও হতে পারে বলে মনে করছেন দলের মুখপাত্র সম্বিত পাত্র। তিনি রাহুলের বিরুদ্ধে বন্যার মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয় নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ এনেছেন। রাহুল গান্ধী এবং তাঁর দলকে কটাক্ষ করে বিজেপি মুখপাত্রের ঠেস, ‘রাহুল গান্ধী সবকিছুতেই রাজনীতি দেখেন।’ কংগ্রেস সহ–‌সভাপতিকে সম্বিত পাত্রের অনুরোধ, ‘কিছু করতে পারলে করুন। কিন্তু দোহাই ফটো তোলার ইচ্ছায় মানুষের দুঃখ–কষ্টকে নিজের স্বার্থে ব্যবহার করবেন না।’‌ সম্বিত পাত্রের সুরে সুর মিলিয়েই বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেন, ‘আমরা জানি না এই আক্রমণের ঘটনা সত্যিই ঘটেছিল, না ঘটানো হয়েছে।’ পাশাপাশি বিজেপি–‌র একটি সূত্রে দাবি করা হয়েছে যে কংগ্রেসের অভিযোগ মতো বিজেপি–‌র গুন্ডারা নয়, স্থানীয় মানুষেরাই রাহুল তথা কংগ্রেসের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন। কারণ বনাসকান্ঠায় কংগ্রেসের বিধায়ক রয়েছেন ৬ জন। কিন্তু এই অভূতপুর্ব বন্যার সময় তাঁরা নিজেদের নির্বাচনী ক্ষেত্রের মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে বেঙ্গালুরুর রিসর্টে আরাম করছেন। তাতেই রেগে গেছে মানুষ। রাহুলের কনভয়ে পাথর ছোঁড়ার ঘটনা সেই ক্ষোভেরই বহিঃপ্রকাশ বলে তাঁরা জানিয়েছেন।
তবে শারদ যাদব, অখিলেশ যাদব প্রমুখ বিরোধী নেতা বিজেপি–‌র এমন বক্তব্য মানতে নারাজ। শারদের বক্তব্য, ‘এই নিন্দাজনক ঘটনাটি নিয়ে বয়ানবাজি বন্ধ করে নিরপেক্ষ তদন্ত করুক সরকার। তাহলেই সত্যি প্রকাশ পাবে।’ একই সঙ্গে শারদ ঘনিষ্ঠ মহলে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, রাষ্ট্রপতি নির্বাচন এবং বিহারে নীতীশ কুমারের ‘দুর্ভাগ্যজনক’ সিদ্ধান্তের পর, রাহুলের ওপর এই আক্রমণ, বেঙ্গালুরুর রিসর্টে তল্লাশি প্রভৃতি ঘটনা বিরোধীদের পক্ষে শাপে বর হবে। সকলেই বুঝতে পারবে বিজেপি কতটা প্রতিহিংসাপরায়ণ রাজনৈতিক দল। তাঁর আশা, বিজেপি–‌র এই প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে বাঁচতেই এবার ঐক্যবদ্ধ হবে বিরোধীরা।



Congress vice-president Rahul Gandhi was attacked by visiting Narendra Modi's district bansakantha in  Gujarat. Rocked stones in the Dhoneri district of Jalpaiganj targeted Rahul's vehicle. Rahul, who was injured, was injured by stone injuries, an officer of the Special Protection Group responsible for Rahul's security. A car glass broke.Congress claims Rahul Gandhi was in the car. However, Banas Kantha Police Superintendent Niraj Baragojar said that Rahul was not in the damaged car. A former Congress panchayat chief and some of his associates were going to the car in Rahul's convoy. He has been arrested by the police for allegedly hurling stones at Rahul's convoy. And a source from the Union Home Ministry said, on the basis of wealth, Rahul was requested to go in the 'bulletproof' vehicle from security guards. But Rahul did not go to the request and got into a normal car. However, no information has yet been reached to the Home Ministry about whether the vehicle has broken the back of the car. But there is no doubt that there is a great deal of security in the security of the VVIP corridor, like Rahul Gandhi. Neither the government nor the SP government can avoid liability in any way. Because the party is in power in both the states and the center.After visiting flood-hit areas of Rajasthan this morning, on the afternoon, the worst affected area of ​​Gujarat reached the richest area. Speaking briefly with the flood victims. Promises that will help the victims as much as possible. Then grease up. There was talk of a roadmap in which Congress vice-president was to present. But as soon as Rahul reached the stage, some BJP supporters started showing him a black flag. They also slogan in support of Prime Minister Narendra Modi. Rahul's statement in the intervention of those BJP workers ended in a ruckus and left for helipad. But Rahul's congratulations began to float in the crowd gathered in the rocks of big stones. But the stone stops leaving red cucumber in the rain, but it does not stop Rahul's convoy.As usual, the news of this attack on Rahul started to be known as political solution. Shortly after the incident, Rahul tweeted, "Narendra Modi, slogan, black flag, stone will not prevent us from anything. We will devote our whole energy to human service. "And Congress spokesperson Abhishek Manu Singhvi described the attack on Rahul at a press conference called by the EICC headquarters at a press conference called 'Kapurukhi'. He attacked the BJP and questioned, 'What do they think? Will they succeed in the opposition to the opposition? Do they want to spread violence and keep everyone down? In this country, the opposition can not protest in the democratic system? "Singhvi's opinion should be strongly condemned by everyone. Congress leader Ahmed Patel, like Singhvi, who has been reduced to defeat in the Gujarat Rajya Sabha elections, said that fearing party like Congress can not be ruled out. "This attack on Rahul Gandhi has proved that the law and order situation in Gujarat has deteriorated," Patel said, noting that any Congress worker is not safe in that state. Besides, Congress spokesperson Ranadip Singh Surjewala tweeted as 'shocking and disgusting'. According to Priya Dutt, Indian politics has never reached the lowest level. Congressman leader Abdul Mannan, in West Bengal, accused the Sangh Parivar of destroying Indian civilization and culture. "Modi government is playing a fascist country." On behalf of BJP, this incident was called Rahul's "theater" Has been described. The party spokesman said that the incident may be arranged by the attackers. He accuses Rahul of politics of natural disasters like floods. Rahul Gandhi insulted the BJP spokesman, insisting on Rahul Gandhi and his party, 'Rahul Gandhi sees politics in everything.' But do not use the misery of human beings for self-interest, but do not use it in your own interest. "BJP leader Kailash Bijoyarjee said," We do not know the incident was actually happened or did not happen. "Also demanded a BJP source It has been said that the Congress allegations are not the thugs of BJP, but the local people are angry about Rahul and the Congress. Yechena. Because there are six legislators of Congress Legislative Assembly in Bonasankan. But during this unprecedented flood, they are not comfortable standing beside the people of their constituency and staying at the Bangalore Resorts. So angry people The story of Rahul's throwing stones in the conveyance is a manifestation of anger.However, Sharad Yadav, Akhilesh Yadav, the opposition leader of BJP, refused to accept such a statement. Sharad said, "The government should take a neutral investigation and close rhetoric about this scandalous incident. Then the truth will be revealed. "At the same time, Sharad has made another important comment in close quarters. He said, after the presidential election and Nitish Kumar's 'unfortunate' decision in Bihar, this attack on Rahul, searches on the resorts of Bengaluru etc. will be cursed on behalf of the opponents. Everyone will realize how viciously the political party is BJP. His hope is that the opposition will be united to survive the politics of this vengeance.
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment