"জনাইয়ের প্রাচীন মনোহরা পেটেন্ট পেতে সক্রিয় হবে "

স্নেহাশিষ মুখার্জি :ওড়িশাকে কোণঠাসা করে বাংলার রসোগোল্লা পেটেণ্ট পাবার অধিকারী হবার পর এবার পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তের আকর্ষণীয় মিষ্টি গুলির জি আই রেজিস্ট্রেশনের সক্রিয়তা বেড়ে গেছে | এর আগেই বর্ধমানের মিহিদানা , সীতাভোগ পেটেন্টের অধিকারী | রসোগোল্লা পেটেণ্ট পাওয়ার পর এবার হুগলি জেলার জনাইয়ের প্রখ্যাত মিষ্টি জনাইয়ের মনোহরা পেটেণ্ট পেতে সক্রিয় হচ্ছে | ছানার গোল্লার ওপর চিনির স্তর | মনোহরার জন্যই জনাইয়ের নাম | রসোগোল্লার পর এবার মনোহরাকেও জি আই স্বীকৃতি দেওয়া হোক আওয়াজ তুললো জনাই |ছানার সংগে চিনি এলাচ মিশিয়ে জ্বাল দেওয়া হয় | ঠান্ডা হলে গোল্লা পাকিয়ে টাতে মেশানো হয় পেস্তার গুড়ো |তারপর চিনি মেশানো ঘন দুধে গোল্লা একবার ডুবিয়েই তুলে নিলে তৈরি মনোহরা | হুগলি জেলার মনোহরার ইতিহাস প্রায় ২০০ বছর পুরনো | অনেকে বলেন ভীম চন্দ্র নাগের বাবা পরানচন্দ্র নাগের হাথেই মনোহরার জন্ম | অন্য মতে জোনাইয়ের ময়রারা ভুল করে সন্দেশকে চিনির রসে ডুবিয়ে ফেলেন | তা থেকেই জন্ম নেয় মনোহরার আইডিয়া | পরাধীন ভারতে ব্রিটিশদের পছন্দের মিষ্টি ছিলো মনোহরা | বিদ্যাসাগর থেকে ছবি বিশ্বাস , উত্তমকুমার , ছায়া দেবীরা এই মিষ্টির ভক্ত ছিলেন | রসোগোল্লার পর এবার স্বীকৃতি পাক তাদের মনোহরা দাবি জনাইয়ের | অন্য দিকে উত্তর বাংলার প্ৰখ্যাত মিষ্টি রস কাদম্বই পরিচিতি মালদার | রসগোল্লার মত মালদা জেলার এই মিষ্টিও স্বীকৃতি পাক দাবি উঠেছে মালদায় | সেই কবে থেকে রসকদম্বের রসে মজে গৌড় বঙ্গ | মালদার গন্ডি ছাড়িয়ে এখন এ মিষ্টিই বিদেশে পারি দিয়েছে | কদমফুলের মত দেখতে এই মিষ্টির ভেতরে থাকে ছোট রসগোল্লা | ওপরে ক্ষীরের প্রলেপ | গায়ে পোস্ত চিনি এলাচের গুড়ো | সুলতান হোসেন শাহের আমলে চৈতন্যদেব গৌড়ে আসেন | কেলি কদম্ব গাছের নিচে রুপ সনাতনকে দীক্ষা দিয়েছিলেন তিঁনি | জনস্রুতি সেই কদম্ব গাছ থেকেই রসকদম্বের জন্ম | ঐতিহাসিকরা জানতে না চাইলেও বৈষ্ণবদের কাছে এ মিষ্টি অমৃত সমান | এমন মিশ্টি সরকারই স্বীকৃতি পাক | বলছেন মালদাবাসী | মোট কথা রসগোল্লার পেটেণ্ট পাবার পর এবার বাংলার বিভিন্ন প্রাণ্তে মিশ্টি গুলি পেটেণ্ট পেতে জি আই রেজিস্ট্রেশনের জন্য যে সক্রিয় হবে সে বিষয়ে একমত পর্যবেক্ষক মহল |
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment