অবসরের পথেই বুদ্ধদেব ভট্রাচার্য

মৃত্যুঞ্জয় সরদার : সিপিএমের আগামী হায়দ্রাবাদ পার্টি কংগ্রেসের আগেই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা পশ্চিমববঙ্গ সিপিএমের শীর্ষ নেতা বুদ্ধদেব ভট্রাচার্য এবার কার্যত সক্রিয় রাজনীতি অবসরই নিতে চলেছেন। ২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নিবার্চনে বাম বিপর্যয় ও মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক পরিবর্তনের পরই মানসিক চাপে বুদ্ধদেব ভট্রাচার্য দলের পলিটব্যুরো থেকে পদত্যাগ করেন। সিঙ্গুর , নন্দীগ্রাম পর্বে সিপিএম তথা  বামেদের রাজনৈতিক বিপর্যয়ের নৈতিক দায়ও নিয়েছিলেন বুদ্ধদেব ভট্রাচার্য।

 একদিকে মানসিক অবসাদ,অন্যদিকে শারীরিক অসুস্থতার কারনে যথেষ্ট হতাশা বাড়তে থাকে বুদ্ধদেব ভট্রাচার্য। পার্টির দৈনন্দিন কাজকর্ম থেকেও অনেকটাই সরে যান বুদ্ধদেব। ২০১১ র প্রথম বাম বিপর্যয়ের পর ২০১৪ সালে লোকসভা নিবার্চনে আবার সিপিএম তথা বামেদের বিপর্যয় ঘটে। মাত্র ২টি আসন জিতে সিপিএম এরপর ২০১৬ সালে বিধানসভা নিবার্চনে প্রকাশ করাতে শিবিরের বিরোধিতা উপেক্ষা করেই সিপিএম কংগ্রেসের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গে নিবার্চনী জোট করে। কংগ্রেস লাভওঠালে ও সিপিএম তথা শিবির ২৭ আসনে নেমে যায়।

 দ্বিতীয়বার বিপর্যয়ের ধাক্কায় পর বুঝে যান যে,অদুর ভবিষ্যতে পশ্চিমবঙ্গে বামেদের ক্ষমতায় ফেরা অনিশ্চিত হয়ে পড়লো। বর্তমান মোদীর ক্ষমতা লাভের পর তৃণমূল. বিজেপির মেরুকরনের রাজনীতিতে পশ্চিমবঙ্গে যে,রাজনৈতিক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা বুঝেই এবার শারীরিক অসুস্থতার কারনে ভট্রাচার্য সিপিএমের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সম্পাদকমন্ডলী, এমনকি রাজ্য কমিটি থেকেও অবসর নিতে চাইছেন। সিপিএমের অনেক নেতাই মানছেন যে,বুদ্ধদেব ভট্রাচার্য আগামী পার্টি কংগ্রেসের আগে সক্রিয় রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়াতে চলেছেন।
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment