সুন্দরবন গ্রামীন মেলার এক অন্যতম আকর্ষন ম্যারাথন দৌড় : শাহজাহান শেখ

স্নেহাশিষ মুখার্জি :প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও তৃনমূলের সন্দেশখালি ব্লক সভাপতি শেখ শাহজাহানের নেতৃত্বে ও সর্বেরিয়া বিপ্লবী সংঘ ক্লাবের উদ্যোগে ২৯ তম সুন্দরবন গ্রামীন মেলা শুভারম্ভ হয় গত কাল  | আর এই মেলাকে কেন্দ্র করেই বুধবার অনুষ্ঠিত হল ৮ কিলোমিটার ব্যাপী ম্যারাথন প্রতিযোগীতা যা বয়েরমারী থেকে সর্বেরিয়া মেলা প্রাঙ্গন পর্যন্ত্ | এই  দৌড়ে অংশগ্রহণ করেন কমবেশি ৪০০ জন প্রতিযোগী | এদের মধ্যে ৩৮৩ জন গন্তব্যস্থল পর্যন্ত্য পৌঁছাতে পেরেছেন | তবে এই ম্যারাথন দৌড়ের বিশেষ বৈশিষ্ট হল যে এই ম্যারাথন দৌড়ে সাত বছরের ছেলে মেয়ে থেকে ৬০ বছরের অধিক বয়স্ক পুরুষ-মহিলারাও অংশগ্রহণ করে | 



স্থানীয় বিধায়ক সুকুমার মাহাতো আমাদের জানান স্পোর্টস ডিপার্টমেন্ট এবং স্পোর্টসে যাতে বেশিরভাগ সুন্দরবনের মানুষ অংশগ্রহণ করতে পারে বা তাঁদের মধ্যে উদ্দীপনা আনা যায় সেই কারণে  এই ম্যারাথন দৌঁড় প্রতিযোগীতা প্রতিবছরের  মত এবারও হচ্ছে আর এটা আমাদের সুন্দরবন বাসীদের জন্য একটা গর্বের মেলা পাশাপাশি এই ম্যারাথন প্রতিযোগিতার মাধমে আগামী দিনে  অনেক ভালো ভালো দৌড়বাজও উঠেআসতে পারে  | 

প্রসঙ্গত ক্যানিংয়ের মধুখালী থেকে আগত প্রতিযোগী ৬০ বছরের অলোক কৃষ্ণ মণ্ডল ম্যারাথন দৌঁড়ে গন্তব্যস্থলে পৌঁছলে আমাদের প্রতিনিধিকে  জানান- 'জিততে পারবো কিনা জানতাম না বা জেতার উদ্দেশ্যেও যোগদান করিনি কিন্তু আমি এসেছি কমবয়েসী এই সব ছেলে-মেয়েদের মধ্যে উৎসাহ এবং উদ্দিপনা বাড়িয়ে তুলতে | 

আর এই ৪০০ জন প্রতিযোগিকেই প্রতিযোগিতার শেষে   বিপ্লবী সংঘ ক্লাবের পক্ষ থেকে ক্লাব প্রেসিডেন্ট শেখ শাহজাহানের নেতৃত্বে পুষ্টিগুণ সম্পন্ন খাবারের প্যাকেট হাতে তুলে দেওয়া হয় | সঙ্গে পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠান তবে এই প্রতিযোগিতায় এর আরো একটি বিশেষ আকর্ষণ হলো যে  সবাইকে উৎসাহ দানের জন্য প্রত্যেক প্রতিযোগিকেই সান্ত্বনা পুরষ্কার দেয়া হয় | 

এই ভাবে  সন্দেশখালির তৃণমূলের ব্লক সভাপতি শাহজাহান শেখের সঙ্গে যোগাযোগ করলে বলেন  সুন্দরবন গ্রামীন মেলার একটা অন্যতম আকর্ষণ হলো এই ম্যারাথন দৌঁড়,আজকের  এই ৪০০ প্রতিযোগীদের মধ্যে দূরদূরান্তের থেকে অনেকেই এসেছে প্রতিবছরের ন্যায় | আজকের এই রোড রেসে প্রথম প্রতিযোগী বারুইপুরের আর দ্বিতীয় হয়েছেন ক্যানিঙের একজন.. প্রশাসন এর যথাযথ সহযোগিতা নিয়ে আর আমাদের ক্লাবের কয়েকশো স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়ে খুবই সচেতনতার সঙ্গে  যথাযথ সব রখমের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে এই দৌড় প্রতিযোগিতা শুরু করাই আর মানুষ জনদের ও ছেলে-মেয়েদের শরীর চর্চা ও খেলা-ধুলা বিষয়ক অণুপ্রেরণা দেওয়াই এই প্রতিযোগীতার্ মূল লক্ষ্য | আর এই ভাবে এই দিনটার জন্য একবছর ধরে অপেক্ষা করে থাকে স্থাণীয় মানুষজন |  

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সন্দেশখালির বিধায়ক সুকুমার মাহাত ,নাজাটা পুলিশ স্টেশনের স্থানীয় আধিকারিক সিদ্ধার্থ ঘোষ ও সন্দেশ খালি থানার পুলিশ আধিকারিকেরা ও সর্বেরিয়া বিপ্লবী সংঘ ক্লাবের সেক্রেটারি ভোলা ঘোষ ও কয়েকশো স্বেচ্ছাসেবী সহ গোটা ৮ কিমি রাস্তা জুড়ে অসংখ সাধারণ মানুষ জন |
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment