১৫২ বার রক্তদান করে মায়ের স্মৃতিতর্পণ কালনার ডোনাদা’র !!!

এক বোতল রক্তের জন্য হন্যে হয়ে খুঁজেও পাওয়া যায়নি,রক্তের অভাবে মায়ের মৃত্যুর পর বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেই বসে আট বছরের শিশুটি তখনই মায়ের দেহের সামনে প্রতিজ্ঞা করেছিল, এরকম ঘটনা যাতে আর কারও জীবনে না ঘটে সেজন্য রক্তদানের মধ্যে নিজেকে জীবনভর সে নিযুক্ত রাখবে আর সেদিনের আট বছরের শিশুটি আজ ৬৪ বছরের বৃদ্ধ পাশাপাশি সেইমতো আজও ওই কর্মযজ্ঞে শামিল।।

কালনা-২ ব্লকের অকালপৌষ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রত্যন্ত তেহাট্টা গ্রামের এই বৃদ্ধের নাম জনার্দন ঘোষ। তবে সে নিয়মিত  রক্তদাতা বা ডোনার, তাই এলাকার সকলেই তাঁকে ডোনারদা বা সংক্ষেপে "ডোনাদা" নামে ডাকেন। সরকারি অফিস, হাসপাতাল, থানা সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্তাদের নোটবুকে ডোনাদার মোবাইল নম্বর থাকে। ১৮ বছর বয়স থেকে রক্ত দেওয়া শুরু।

তারপর থেকে এখনও অবধি ১৫২ বার রক্ত দিয়ে ডোনাদা নজির তৈরি করেছেন। রক্তদান শিবিরে যাওয়ার সময় আজও মায়ের কথা স্মরণ করেন। গত ১২ বছর ধরে বর্ধমান জেলা পুলিস লাইনে সাধারণতন্ত্র দিবসে জেলা প্রশাসন তাঁকে সংবর্ধনা দিচ্ছে।

আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি এবং তারপর ২০ জুন ডোনাদার ফের রক্তদান করার কর্মসূচি ঠিক করা রয়েছে। একবার রক্ত দেওয়ার ন্যূনতম তিন মাস পর ফের দেওয়া যায়। ডোনাদা সেইমতো বছরে নিয়ম করে তিন থেকে চারবার রক্ত দেন। দিল্লিতে গিয়েও দু’বার রক্ত দিয়েছেন। প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর মৃত্যু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত রক্তদান শিবিরে দু’বার অংশ নিয়ে রক্ত দিয়েছেন। 

তবে, ১৯৮৭-’৮৮ সাল নাগাদ সেন্ট্রাল ব্লাড ব্যাংকে বিপুল পরিমাণ রক্তের পাউচ নষ্ট হওয়ার ঘটনায় ব্যথিত ডোনাদা তিন বছর রক্তদান করেননি। এজন্য তিনি তৎকালীন সরকারকেও কাঠগড়ায় তুলতে ছাড়েননি। যদিও বছর তিনেকের বিরতির পর ফের নিজেকে রক্তদান শিবিরে ধারাবাহিকভাবে নিযুক্ত রেখেছেন।

রক্তদানের পরিসংখ্যানে ১৫০ বারের গণ্ডি টপকেও ৬৪ বছর বয়সে এখনও ডোনাদা চিকিৎসকের দ্বারস্থ হননি। ওজন ৯৪ কেজি। অনেকেই ভয়ে রক্তদানে পিছপা হন। তাঁদের মনে ভ্রান্ত ধারণা তৈরি হয়। ডোনাদা তাঁদের কাছে নিশ্চিতভাবে অনুপ্রেরণা। শুধু পূর্ব বর্ধমান জেলা নয়, রাজ্যের যেকোনও প্রান্তে রক্তদান শিবির হলে ডোনাদার আমন্ত্রণ আসে। ১৬ আগস্ট ফুটবলপ্রেমী দিবসে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়াম কিংবা কেন্দ্রীয় ব্লাড ব্যাঙ্কে শিবির হলে এখনও ডোনাদার কাছে একটা চিঠি আসে।


Source:- News Daily
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment