সিপিএম শূন্য হতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গ ত্রিপুরায় !!!



Indiapost 24 Web Desk : ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এখন থেকেই কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপি কংগ্রেস সহ বিভিন্ন বিরোধী দল আগাম সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে | এপ্রিলে হতে চলেছে আগামী পার্টি কংগ্রেস | দলের পার্টি কংগ্রেসের আগে নাসিক থেকে মুম্বাই কৃষকদের লং মার্চকে সামনে রেখে সিপিএম নেতৃত্ব দলের কর্মী সমর্থকদের ত্রিপুরার শোক ভোলানোর চেষ্টা শুরু করলেও হায়দ্রাবাদ পার্টি কংগ্ৰেসের উত্তর পূর্বাঞ্চলের বাংলাদেশ লাগোয়া স্পর্শকাতর রাজ্য ত্রিপুরার বাম শাসনের অবসান যে , ভাল রকমের ছায়া ফেলতে চলছে তা বলাই বাহুল্য |
এদিকে সিপিএমের নয়া দিল্লী এ  কে গোপালন ভবনের কেন্দ্রীয় পার্টি সেন্টারে ত্রিপুরার রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে প্রতিনিয়ত পর্যালোচনা চলছে | ত্রিপুরার  নির্বাচনের পর দলের রাজ্য কমিটির পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট না এলেও প্ৰাথমিক রিপোর্ট দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে পৌঁছে গেছে | ত্রিপুরার বাম বিরোধি শক্তির সমর্থনে বিজেপি গেরুয়া অভ্যুথানের পর আগামী লোকসভা নির্বাচনে ত্রিপুরা পশ্চিম ও ত্রিপুরা পূর্ব কেন্দ্রে যে , সিপিএমের সম্ভবনা অতন্ত্য ক্ষীণ তা স্বীকার করেছেন দলের কেন্দ্ৰীয় নেতারাও | একইভাবে পশ্চিমবঙ্গে একদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব তৃণমূল কংগ্রেস , অন্যদিকে বিজেপি ষ্পষ্ট রাজনৈতিক মেরুকরণের যাঁতাকলে যে সিপিএম তথা বামেদের কোন সম্ভবনা নেই তা মেনে নিচ্ছে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা | 

২০১৪ সালে পশ্চিমবঙ্গ থেকে মহম্মদ সেলিম উত্তরদিনাজপুরের রায়গঞ্জ , অন্যদিকে বদরুজ্জুহা খান মুর্শিদাবাদ জেলার মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের চতুর্মুখি প্রতিদন্ধিতায় বিজয়ী হয়েছিলেন | কিন্তু পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতি গুণগত পরিবর্তন না ঘটলে পশ্চিমবঙ্গের ৪২ টি আসনের শুধুমাত্র রায়গঞ্জ ও মুর্শিদাবাদ আসনও সিপিএমের পক্ষে ধরে রাখার সম্ভাবনাকে কার্যত নাকচ করেছেন সিপিএমের কেন্দ্ৰীয় নেতৃত্বের বরিষ্ঠ অংশ এমনটাই দলীয় সূত্রের খবর |
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment