নবরূপে আসানসোল শতাব্দী পার্ক উদ্বোধনে সস্ত্রীক বাবুল সুপ্রিয় !!!

সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত: নতুনভাবে এবং সম্পূর্ণ নতুন রূপে উদ্বোধন হল আসানসোল শতাব্দী পার্কের, যে পার্কের সাথে আসানসোলের আপামর জনগণের আবেগ, স্মৃতি, নস্টালজিয়া জড়িয়ে রয়েছে। স্থানীয়  আসানসোলের সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ের উদ্যোগে এই পার্কের সংস্কার করা হয়। এরপর গতকাল সন্ধ্যায় স্ত্রী রচনা ও কন্যা নয়নাকে সঙ্গে নিয়ে এই পার্কের উদ্বোধন করেন তিনি।
  বস্তুত, ১৯৮৯ সালে তৎকালীন রেলমন্ত্রী মাধবরাও সিন্দিয়া ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর  জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে পার্কটি প্রথম উদ্বোধন করেন।
রেলের সম্পত্তি এই পার্কটি লিজ় দিয়ে চালানো হত। কিন্তু, বছর তিনেক আগে সেটি বন্ধ হয়ে যায়। এক বছর আগে পার্কটি খোলার দাবিতে আসানসোলের বুদ্ধিজীবীরা পার্কের গেটের সামনে আন্দোলন শুরু করেন। এরপর আসানসোল রেল ডিভিশনের DRM (ডিভিশনাল রেলওয়ে ম্যানেজার) প্রশান্ত কুমার মিশ্র পার্ক পরিদর্শন করে জানান সেটি পুনরায় খোলা হবে। কিন্তু, পার্কটি সেই সময় একেবারে ধ্বংসের অবস্থায় ছিল। বিষয়টি শুনে এগিয়ে আসেন স্থানীয় সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সু্প্রিয়। নিজের সাংসদ কোটা থেকে ৪৪ লাখ টাকা খরচ করেন শতাব্দী পার্কের সংস্কারের জন্য। এর ফলে নতুন ভাবে রূপ ফিরে পায় শতাব্দী পার্ক। তৈরি করা হয় রাস্তা, বাগান ও বসার জায়গা। পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য আলাদা শৌচাগার ও ঠান্ডা পানীয় জলের ব্যবস্থা করার পাশাপাশি পার্কের তিনটি জলাশয়কে নতুন ভাবে সংস্কারও করা হয়। শুধু তাই নয় পার্কে প্রায় ১০০০ গাছ লাগান হয়েছে বলেও জানিয়েছেন DRM প্রশান্ত কুমার মিশ্র।
উদ্বোধনের পর বাবুল সুপ্রিয় এবং DRM প্রশান্ত কুমার মিশ্র জানান, আসানসোলবাসীকে পুজোর উপহার দেওয়া হল। এই পার্কে ঢুকতে ১০ টাকা টিকিট কাটতে হবে। খোলা থাকবে সকাল ৬ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত। পার্কের পরিবেশ যাতে নষ্ট না হয় তার জন্য অতিরিক্ত নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করবে রেল। এছাড়া সিসিটিভি এর মাধ্যমেও নজরদারি করবার পরিকল্পনা রয়েছে। 
তবে যাঁদের আন্দোলনে শতাব্দী পার্ক নতুন রূপ পেল গতকাল উদ্বোধনের সময় সেই বুদ্ধিজীবী বা বিশিষ্টজনদের কাউকেই নিমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলে অভিযোগ যা নিয়ে ক্ষোভ জানিয়েছেন অনেকেই।
Link:https://www.youtube.com/channel/UC38vi3B6DkCigbtKYEHCuvw
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment