বসিরহাট কেন্দ্রে নায়িকা নুসরাত ,দিদির রাজনীতির ময়দানে লুজ বল নাঁকি গুগলি ?




Snehashis Mukherjee:রাজ্যে লোকসভা প্রার্থীর নাম ঘোষণার পর পর ই আমজনতার দরবার থেকে শুরু করে  বিভিন্ন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের  বিভিন্ন মতামতে রাজ্যের  বিভিন্ন কেন্দ্রের প্রার্থী বদল থেকে বিনোদন জগতের নতুন নতুন অনভিজ্ঞ অরাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের শাসক দলের প্রার্থী করা থেকে বিগত পাঁচ বছরের  কার্যকলাপের বিবরণ ও পাশাপাশি টিভির পর্দা ,সোশ্যাল মিডিয়া ও শহর-মফরসোল এর চায়ের  দোকান গুলি যখন অলোচনা- সমালোচনায় উত্তপ্ত  তখন ই কান পাতলে শোনা যাচ্ছে বাসিরহাট কেন্দ্র দিয়ে  উঠে আসা এক গুচ্ছ  মতামত ..দিদির রাজ্য রাজনীতির ময়দানে এটি লুজ বল নাকি গুগলি ?



২০১৪ সালে বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রে আইনজীবী ইদ্রিস আলি যেখানে তৃণমূলের হয়ে বিরোধীদের ধরাশায়ী করে লোকসভা ভোটে জয় ছিনিয়ে নিয়ে এসছিলেন ঠিক সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে জাতীয় রাজনিতীতে হটাৎ রাজনৈতিক অনভিজ্ঞ লাস্যময়ী এক অভিনেত্রীকে লোকসভার প্রার্থী করা নিয়ে প্রকাশ্যেই মমতা ব্যানার্জীর সমালোচনা করছেন অনেকেই।  



স্বাভাবিক ভাবেই বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠছে যেখানে দলের প্রতি ইদ্রিসের আনুগত্য প্রশ্নাতীত , সারা ভারতবর্ষের জাতীয় রাজনিতীতে সেরা পাঁচ সংসদের তালিকায় তাঁর নাম , পাশাপাশি যেখানে মুসলিম সমাজে বসিরহাটে ইদ্রিসের জনপ্রিয়তা যথেষ্টই সেখানে  হটাৎ এই কেন্দ্রের রাজনীতিতে  অনভিজ্ঞ নুসরত জাহান ? 

তাই  রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে ২০১৭ সালের জুলাই এর শুরুতে বসিরহাটের সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষ ইদ্রিস আলির আলোকিত অধ্যায়ের এক  অন্ধকার দিক হিসাবেও বহু চর্চিত যা বসিরহাটের মানুষকে ধর্মের সুড়সুড়ি দিয়ে হিন্দু মুসলিম ভাগ করতে অনেকটাই সমর্থ হয়েছে বলে মনে করেন একাংশ ।ঠিক সেই কারণে ২০১৪ সালের তুলনায় ২০১৯ এ এই কেন্দ্রের হিন্দু ভোট অনেকটাই একত্রিত হয়ে বিরোধী শিবিরের হস্তগত  হতে পারে যা তৃনমূল সুপ্রিমোর যঠেষ্ট মাথাব্যথার কারন। আর বিজেপি যাতে কোনওভাবেই সাম্প্রদায়িক ধোঁয়া তুলে ইদ্রিস আলির বিরুদ্ধে জনমত একত্রিত করে ভোট বৈতরণী পার করতে না পারে আর সঙ্গে বিক্ষুদ্ধ হিন্দু ভোটারদের শান্ত করতে  কেন্দ্রের প্রার্থী বদল করে এক ঢিলে দুই পাখি মেরে  রুপালি জগতে আবেদনময়ী  নুসরতকে জাতীয় রাজনিতীতে আনয়ন করা হয়েছে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞগণ ।

https://www.indiatost24.com/?m=1
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment