তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা দিবসে বাসন্তীতে ঘরছাড়ারা ঘরে ফিরলো

মৃত্যুঞ্জয় সরদার :দক্ষিণ ২৪ পরগনার  বাসন্তীতে তৃণমূলের গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব প্রায় লেগেই থাকছে সব সময়,এমনকি এই গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের জেরে পরিস্থিতি বেশ উত্তপ্ত হয়ে অনেকেরই অকালে জীবন দিতে হয়েছে ও ঘর ছাড়া কয়েকশো পরিবার আর  এই সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে বিরোধী দলের রাজনৈতিক কর্মীরা তাদের পাল্লা ভারী করতে উদ্দত ও এই প্রচার দিয়ে  তাদের আয়োজিত জনসভায় ভীড় বাড়ানোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। 
ঠিক এমন পরিস্থিতিতে এদিন  তৃণমূলের ২০ তম প্রতিষ্ঠা দিবসে ও নববর্ষে 
সংসদ প্রতিমা মন্ডলের তত্ত্বাবধানে নয়জনের এক বিশেষ কমিটি দায়িত্ব নিয়ে বাসন্তী ব্লকের  নিদ্দের্শখালী,ফুলমালঞ্চ চরাডাকাতীয়া এই সমস্ত অঞ্চল থেকে গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের স্বীকার,রাজনৈতিক ও উপদলীয় সংঘর্ষে ঘর ও পরিবার ছাড়া ১১৯ জনকে এদিন শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রেখে বাড়িতে ফেরাতে সক্ষম হয়ে এক উজ্জ্বল নজির তৈরী করলেন..এতে স্বাভাবিক ভাবে  বাসন্তীতে এক এক রাজনৈতিক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে..
দীর্ঘ সময় ধরে যারা  ঘর ও পরিবার ছাড়া ছিল গোষ্ঠী কোন্দল এর ফলে, আজ তারা বাড়িতে ফিরেছেন। এত দিন যারা ফেরার ছিল সকাল থেকেই তাদেরকে ও তাদের পরিবার বর্গদের খুসির মেজাজে দেখা গিয়েছে। প্রসঙ্গত আমাদের মাধ্যম কে  সংসদ প্রতিমা মন্ডল জানান  এদিন ১১৯ যারা ফিরেছে তারা দলের লোক কিনা বা আদৌ  একজনও দলের কিনা সেটা আমার কাছে কোনো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয় তবে এক জন জনপ্রতিনিধি হিসাবে আমার প্রথম ও এক মাত্র কাজ হলো আমার কনষ্টিটুয়েন্সি এর সব রাজনৈতিক দলের ঘর ছাড়া সব মানুষ কে মাননীয়া  মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী শান্তিপূর্ণ ভাবে ঘরে ফেরানো সেটাই আমার প্রধান কর্তব্য.নেত্রীর নির্দেশে কোনো  রাজনৈতিক যোগাযোগ ,উপদলীয় যোগাযোগ কে বিচারের মধ্যে না রেখেই ঘর ছাড়াদের(জানা গেছে তাদের মধ্যে অনেকে যেমন তৃণমূল দলের আবার বাম পন্থী শিবিরেরও) ঘরে আনা হয়েছে..বাসন্তী তৃণমূল পঞ্চায়ত সমিতি সদস্য তাপস মন্ডল বলেন প্রতিষ্ঠা দিবসের উপলক্ষ্যে  ফেরারদের বাড়িতে দিয়ে আসা হয়েছে  দিদির নির্দেশ  মতো। বাড়ি ফিরে সবাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী  ও তৃণমূল সরকারের বিভিন্ন জনহিতকর কার্যকলাপ নিয়ে জয়গান গাইছেন বলে দাবি স্থানীয় সূত্রের..তবে সংসদ এর এই ভূমিকা নিয়ে বাসন্তীতে দলমত নির্বিশেষে সাধারণ মানুষ এই উদ্দ্যোগ কে স্বাগত জানাচ্ছেন ।
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment