দৌলতাবাদ দুর্ঘটনার পরেও প্রশাসনের হুস ফিরেনি

Abu Selim Ahmed:মুর্শিদাবাদ জেলার দৌলতাবাদ থানার গোবরা খালের উপর বালির ঘাট ব্রিজের রেলিং ভাঙে নদীতে বাস পড়ে এতো বড় ভায়াবহ দুর্ঘটনার পরেও প্রসাসনের হুস ফিরলনা । 

দুর্ঘটনার ২৪ ঘন্টা কাটতে না কাটতে যদিও এখনো চলছে উদ্ধার কাজ,এমনকি স্বয়ং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী  ও পরিবহন মন্ত্রী নেজেরাই এসেছিলেন সরজমিনে অথচ আজই বহরমপুর থেকে বিকাল ৫.২০ মিনিট নাগাদ ভায়া মালদহ, সিলিগুড়ি গামী  "WB63 -3763" নম্বরের NBSTC-এর একটি বাস যাত্রী বোঝায়ের পরও বহরমপুরের মতো গতকালেই ঘা খাওয়া জায়গাতে লক্ষ লক্ষ মানুষের সামনে দিয়েই পুরোপুরি  বাসের ছাদ ভর্তি করে চললো যেন এক মালবাহী  ট্রাক যা  না দেখলে বিশ্সাসই করা যাবেনা,সেই চিত্র টি ধরা পড়লো আমাদের  "Indiapost24" এর প্রতিবেদকের ক্যামেরায়  । আর দুর্ভাগ্য বশতঃ যদি  এই বাস কোথাও পড়ে তাহলে তাহলে পরিণাম কি হতে পারে তা বলাই বাহুল্য  ।

বহরমপুরের উত্তরবঙ্গ পরিবহন সংস্থার বাস ডিপো এবং পরিবহনের দপ্তরের  ডিভিসোনাল অফিসার থাকার পরেও এই জনবহুল ও যে আর্তনাদের চিৎকার আজও গোটা মুর্শিদাবাদ সহ পশ্চিমববাসীর কানে বাজছে আর সেই  বহরমপুরের বাস স্টান্ড থেকে এই ওভার লোড বাস কিভাবে রওয়না হলো? প্রশ্ন জাগছে সমস্ত বাংলাবাসীর কাছে পাশাপাশি স্বজন হারা সমস্ত মানুষের মনে .. আবার বহরমপুরের  মোহনা বাস স্টান্ডে কর্মরত ট্রাফিকদেরও চোখে পড়লোনা এতো বড় একটা ওভারলোডেড বাসের দিকে নাকি এটি মাসকাবারি কোনো লেন-দেন এর বিষয়ভুক্ত তাই হয়তো অতি সহজেই তাদের চোখ এড়িয়ে গেলো বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহলের একাংশ  । 

তাই এই ভাবে মুক্ষমন্ত্রীর অন্যতম প্রকল্প সেফ ড্রাইভ সেফ লাইফ কে তোয়াক্কা না করে আর আইন বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে  যদি সরকারি বাস গুলোই এই ভাবে বেআইনি ওভারলোডেড চলে  তাহলে বেসরকারি পরিবহন ব্যবস্থার যে কি হাল তা আর বলার অবকাশ রাখে না আর এই রকম গত কালের দৌলতাবাদের  ৪২ জন কে কেন আরোও  কত নিরীহ মানুষের যে অকালে প্রান যাবে তা কেবল সময়ের অপেক্ষা যদি না এই পরিস্থতিতে সরকার কঠোরতম আইন ও পরিকল্পনা গ্রহন না করে আর পাশাপাশি প্রসাশানকেও জবাব দিহি না করে..তাই সাধারণ জনগণের স্বার্থে এই বিষয় টি  নিঃসন্দেহে আমরা পরিবহন মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করবো !!
Share on Google Plus Share on Whatsapp



0 comments:

Post a comment